চোখের রোগ ও সমস্যা এবং প্রতিকার

চোখের রোগ ও সমস্যা এবং প্রতিকার

চোখের রোগ ও সমস্যা এবং প্রতিকার

চোখ একটি স্পর্শকাতর সংবেদনশীল অঙ্গ, যার সাহায্যে আমার এই সুন্দর পৃথিবী দেখতে পাই, তার রূপ উপভোগ করি। তাই চোখ অনেক মূল্যবান সম্পদ। এই মূল্যবান সম্পদের রক্ষাবেক্ষণের দায়িত্ব আমাদের সকলের। চোখের রোগ ও চিকিৎসা নিয়ে কখনোই অবহেলা করা যাবে না। সময় থাকতে চোখের চিকিৎসা না করলে কত ক্ষতি হতে পারে তা আমরা কখনও চিন্তাও করিনা।

 

বেশিরভাগ লোকের জীবনের কোন না কোন সময়ে চোখের সমস্যা হয়। কিছু এমনিতেই সেরে যায়। আবার বেশ কিছুর জন্য বিশেষজ্ঞের ডাক্তারদের সাহায্য নিতে হয়। চোখের যত্ন কিভাবে নিতে হয় সেই সম্পর্কে যথেষ্ঠ জ্ঞান রাখাই হল চোখ ভালো রাখার উপায়।

আপনার চোখের কার্যক্ষমতা ঠিক রাখতে হলে চোখের রোগ কি কি রোগ রয়েছে সেই সম্পর্কে জেনে রাখা উচিৎ। এই জন্য আপনাদেরকে চোখের রোগের লক্ষণ গুলো জানতে ও চিনতে হবে। আপনাদের সংবেদনশীল চোখের যত্নের জন্য আজাকে আমরা চোখের রোগ ও প্রতিকার নিয়ে বিস্তারিত আলোচলনা করব।

চোখের বিভিন্ন রোগ, লক্ষণসমূহ ও প্রতিকারঃ

১। ম্যাকুলার অবক্ষয়

ম্যাকুলার অবক্ষয় নামটি রেটিনার কেন্দ্রীয় অংশের ক্ষয়ক্ষতির জন্য দেওয়া নাম, যা ম্যাকুলা নামে পরিচিত। চোখে কেন্দ্রীয় দৃষ্টি কেন্দ্রীভূত করার ক্ষমতা সহ, ম্যাকুলা আমাদের পড়তে, বস্তুগুলিকে বিশদভাবে দেখতে, রঙ এবং মুখগুলি সনাক্ত করতে, গাড়ি চালাতে এবং কোনও সামগ্রীর বিশদ চিত্র পেতে সহায়তা করে। এই রোগে স্বাভাবিক ম্যাকুলার স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায়।

এই রোগের লক্ষণঃ

• কেন্দ্রীয়ভাবে কোন কিছু দেখতে পারা তে সমস্যা অনুভব হয়। আংশিক দৃষ্টি হ্রাস হতে পারে যা স্কটোমাস হিসেবে পরিচিত।
• অল্প বা ঝিমিঝিমি আলোতে দেখতে সমস্যা হয়।
• কোন জিনিস বা বস্তু তাদের আসল আকারের চেয়ে ছোট আকারে দেখা যায়।
• রঙ চিনতে সমস্যা হয়।

এই রোগের চিকিৎসাঃ

এখনও অবধি, ম্যাকুলার অবক্ষয়কে সম্পূর্ণরূপে ভাল করতে সক্ষম এমন কোন একক চিকিৎসা নেই। চোখের অভ্যন্তরে অস্বাভাবিক রক্তনালীগুলির বৃদ্ধি রোধে সহায়ক কিছু ওষুধ রয়েছে যেমন চোখের গহ্বরে ইনজেকশন দেয়ার জন্য অ্যান্টি ভিজিএফ ওষুধ এবং অস্বাভাবিক রক্তনালীগুলি ধ্বংস করতে ফোটোডিনামিক থেরাপি বা লেজার থেরাপি ইত্যাদি।

২। চোখের ছানি

ছানি ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা চোখের অন্যতম বহুল সমস্যা। চোখের লেন্সে ঘোলা অঞ্চলগুলির গঠনকে ছানি হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। আপনার চোখের লেন্সগুলিতে ছানি ছড়িয়ে পড়ে, আলো সহজেই রেটিনার উপর দিয়ে যেতে পারে না। ফলস্বরূপ, আপনি ছানিবিহীন লোকের মতো পরিষ্কারভাবে দেখতে পাচ্ছেন না এবং রাতে লাইটের চারপাশে কোনও হলো বা ঝলক দেখতে পাবেন।

এই রোগের লক্ষণঃ

• অস্পষ্ট, ঘোলা বা ম্লান দৃষ্টি
• রাতে দেখতে সমস্যা
• আলো এবং ঝলক এর মধ্যে দেখা সমস্যা
• প্রায়শই যোগাযোগের লেন্সের প্রেসক্রিপশন বা চশমা পরিবর্তন করা
• রঙগুলির বিবর্ণ বিবরণ

এই রোগের চিকিৎসাঃ
ছানি ছোঁড়ার প্রাথমিক পর্যায়ে, নতুন চশমা, অ্যান্টিগ্লেয়ার সানগ্লাস, ম্যাগনিফাইং লেন্স এবং উজ্জ্বল আলো সহায়তা করতে পারে। যদি তা না হয় তবে শল্য চিকিৎসা একমাত্র কার্যকর উপায় হিসাবে দেখা দেয়, যার মধ্যে একটি কৃত্রিম পদ্ধতিতে ঘোলা লেন্সগুলি অপসারণ করা হয়। নির্দিষ্ট ভিটামিন এবং খনিজগুলিতে সমৃদ্ধ খাবার ছানি প্রতিরোধের জন্যও নির্ধারিত হতে পারে।

৩। গ্লুকোমা

গ্লুকোমা এমন একটি চোখের অবস্থা যেখানে চোখের অপটিক স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্থ হয়, সময়ের সাথে সাথে আরও খারাপ হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, এটি চোখের তরলটির মধ্যে চাপ তৈরির ফলে ঘটে যা মস্তিষ্কে সংক্রমণ করার জন্য দায়ী এবং অপটিক নার্ভকে ক্ষতি করতে পারে। এই বর্ধিত চাপকে আন্তঃআবাহক চাপ হিসাবেও চিহ্নিত করা হয়, যদি এটি দীর্ঘ সময়ের জন্য অব্যাহত থাকে তবে স্থায়ী দৃষ্টি হারাতেও পারে। যদি চিকিৎসা না করা হয় তবে গ্লুকোমা কয়েক বছরের ক্ষেত্রে স্থায়ীভাবে অন্ধ হয়ে যায়।

এই রোগের লক্ষণঃ

• বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বমি বমিভাব সহ চোখের তীব্র ব্যথা
• চারপাশে তাকালে ঝাপসা ঝাপসা লাগা
• চোখের ভিতর তীব্র লালচে ভাব

এই রোগের চিকিৎসাঃ

সাধারণত চোখের ড্রপ থেকে শুরু করে বড়ি, অস্ত্রোপচার এবং লেজার সার্জারি বা এমনকি উভয় পদ্ধতির সংমিশ্রণে একজন অভিজ্ঞ চক্ষু ডাক্তার এই রোগের চিকিৎসা করে থাকেন। রোগের শুরুতেই ডাকারের শরনাপন্ন হওয়া জরুরী।

৪। ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি

ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি মূলত ডায়াবেটিসের জটিলতা, যা রেটিনার (চোখের পিছনের) হালকা সংবেদনশীল টিস্যুতে ছড়িয়ে রক্তনালীগুলির ক্ষতি করে চোখকে প্রভাবিত করে। ডায়াবেটিস আক্রান্ত যে কেউ এই চোখের অবস্থার শিকার হতে পারে, বিশেষত যাদের রক্তের শর্করার মাত্রা ওঠানামা করে দীর্ঘকাল ধরে ডায়াবেটিস রয়েছে। সাধারণত দুটি চোখই ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথিতে আক্রান্ত হয়।

এই রোগের লক্ষণঃ

• অন্ধকার দাগ বা স্ট্রিংগুলি রোগীর দর্শনের মাধ্যমে ভাসমান থাকা
• রঙের বিকৃত রূপ দেখা
• দৃষ্টি শক্তির উঠানামা করা
• ঝাপসা দৃষ্টি

এই রোগের চিকিৎসাঃ

একবার মারাত্মক পর্যায়ে চলে যাওয়ার পরে রেটিনোপ্যাথি নিরাময়ের কোনও নির্ভরযোগ্য উপায় থাকে না। যাইহোক, ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির জন্য ভাল চিকিৎসা পদ্ধতি হল ভিট্রিকোম। এই পদ্ধতিতে ভিট্রেস জেলটি সার্জিকালি অপসারণ করা হয়।

৫। রাতকানা (নাইক্টালোপিয়া)

নাইক্টালোপিয়া বা রাতের অন্ধত্ব এক ধরণের দৃষ্টি প্রতিবন্ধকতা যেখানে লোকেরা রাতে বা অন্য অস্পষ্ট আলোকিত পরিবেশে সঠিকভাবে দেখতে অক্ষম। সাধারণভাবে রাতাকানা রোগে একজন মানুষ রাতে একবারেই দেখবে না ব্যাপারটা এমন নয়। শুধু পর্যাপ্ত আলোকিত নয় এমন জায়গাগুলিতে দেখতে বা গাড়ি চালাতে অসুবিধা বোধ করতে পারে।

এই রোগের লক্ষণঃ

রাতকানা রোগের একমাত্র লক্ষণটি হল রাতে বা অন্ধকারে কিছু দেখতে অসুবিধা হওয়া।

এই রোগের চিকিৎসাঃ

ভিটামিন এ এর অভাবজনিত কারণে সাধারণত এই রোগ হয়। তাই ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার খেলে এই রোগ ভাল হয়ে যায়। তাছাড়া চোখে লেন্স ব্যাবহার করা যেতে পারে।

৬। হাইপারমেট্রোপিয়া

হাইপারমেট্রোপিয়া রোগে নিকটবর্তী বস্তু থাকলে দৃষ্টি ঝাপসা লাগে। যদি প্রায়শই ক্লান্তি অনুভব হয় এবং কাজের জিনিসের জন্য দেখতে সমস্যা হয় তাহলে তা হাইপারমেট্রোপিয়ার জন্য হতে পারে।

এই রোগের লক্ষণঃ

• কাছাকাছি বস্তুর জন্য দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসছে
• চোখে ক্লান্তি লাগা
• হালকা হালকা মাথা ব্যাথা থাকা

এই রোগের চিকিৎসাঃ

চশমা এবং লেন্সগুলি হাইপারমেট্রোপিয়া চিকিৎসাতে বেশ কার্যকর উপায়। অন্য দিকে ল্যাসিক অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এই রোগের চিকিৎসা করা যায়।

৭। প্রেসবিওপিয়া

ধীরে ধীরে দৃষ্টিশক্তি হ্রাস হওয়ায় মানুষের চোখের কাছের জিনিসগুলিতে মনোনিবেশ করতে অক্ষমতাটিকে “প্রেসবিওপিয়া” হিসাবে অভিহিত করা হয়। বেশিরভাগ লোক কেবল তখনই প্রেসবায়োপিয়া সম্পর্কে সচেতন হয় যখন তারা বই, সংবাদপত্র এবং অন্যান্য পড়ার উপকরণগুলিকে মুখের কাছাকাছি এনে পড়তে বাধ্য হয়।

এই রোগের লক্ষণঃ

• অস্পষ্ট দৃষ্টি এবং সাধারণ পড়ার দূরত্বে পড়ার অক্ষমতা
• মাথার নিচের দিকটাতে একটু একটু ব্যাথা করা

এই রোগের চিকিৎসাঃ

চশমা, কন্টাক্ট লেন্স, রিফেক্টিভ সার্জারি এই রোগের চিকিৎসার অন্যতম উপায়।

৮। প্রোপটোসিস

চোখের বলের পানি ঝরাকে “প্রোপটোসিস” হিসাবে উল্লেখ করা হয়, যখন “গ্রাভস” রোগের কারণে এই জাতীয় প্রোট্রুশন ঘটে তখন তাকে “এক্সোফথালমোস “ও বলা হয়। অরবিটাল ভর বা প্রদাহ, ক্যাভারনাস সাইনাসের থ্রোম্বোসিস, ফিস্টুলাস এবং অরবিটাল হাড়ের প্রসারণ চোখের পাতার এই অস্বাভাবিক প্রসারণের পেছনের কয়েকটি সাধারণ কারণ।

এই রোগের লক্ষণঃ

• চোখের ব্যথা এবং জ্বালা
• হালকা সংবেদনশীলতা
• চোখের নিঃসরণ (ল্যাক্রিমেশন)
• ঝাপসা দৃষ্টি
• ডিপ্লোপিয়া (চোখের পেশী দুর্বল হওয়ার ফলে ডাবল ভিশন)

এই রোগের চিকিৎসাঃ

প্রোপটোসিসের গুরুতর ক্ষেত্রে, একজন চক্ষু বিশেষজ্ঞ বেশিরভাগ কর্নিয়াল সুরক্ষার জন্য তৈলাক্তকরণের পরামর্শ দেন। প্রদাহজনক অরবিটাল সিউডোটুমার বা থাইরয়েড চোখের রোগের কারণে চোখের ভিতর শল্য চিকিৎসা করা হয়।

শেষ কথা হিসেবে বলতে চাই যে আমাদের সকলেরই চোখের রোগ ও চিকিৎসা সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিৎ। চোখের যত্ন নেওয়ার পাশাপাশি, সমস্যাজনিত লক্ষণ ও লক্ষণগুলি সম্পর্কে সতর্কতা অবলম্বন করা দরকার। নিয়মিত চোখের ডাক্তার দিয়ে চোখ পরীক্ষা করালে এবং তাদের পরামর্শ মেনে চললে বেশ ভাল কাজ হয়।